Tuesday , January 28 2020
Home / জাতীয় / রোহিঙ্গা পুনর্বাসনে জার্মানির সহায়তা চাইলেন প্রধানমন্ত্রী

রোহিঙ্গা পুনর্বাসনে জার্মানির সহায়তা চাইলেন প্রধানমন্ত্রী

জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের সঙ্গে বৈঠকে এই সহায়তা চান বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ শনিবার জার্মানির মিউনিখে নিরাপত্তা সম্মেলনের ফাঁকে আলোচনায় মিলিত হন এই দুই নেতা৷

তাঁদের মধ্যে প্রায় ঘণ্টাকালীন কথা হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম৷ সরকারি বার্তা সংস্থা বাসস-এর খবরে এই তথ্য জানানো হয়েছে৷

প্রধানমন্ত্রী জার্মান চ্যান্সেলরকে বলেন, ‘‘বাংলাদেশ মিয়ানমারের শরণার্থীদের পুনর্বাসনের বিষয়টি মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে দেখছে৷ কিন্তু পর্যটন শহর কক্সবাজারে তাদের অবস্থান ও কর্মকাণ্ডের কারণে সেখানকার পরিবেশ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, স্যানিটেশন ব্যবস্থার বিপর্যয় ঘটছে, যা তাদেরও অমানবিক জীবনযাপনে বাধ্য করছে৷”

তাই বাংলাদেশ সরকার শরণার্থীদের একটি উন্মুক্ত, স্বাস্থ্যকর ও নাগরিক সুবিধা সম্বলিত স্থানে সরিয়ে নিতে চায় বলে জানান প্রধানমন্ত্রী৷ এ লক্ষ্যে জার্মানি সহ অন্যান্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহযোগিতা কামনা করেন তিনি৷

এছাড়া দুই দেশের মধ্যে ব্যবসা সম্প্রসারণ নিয়েও দুই নেতার মধ্যে আলোচনা হয়৷ বৈঠক শেষে দুই দেশের মধ্যে একটি সমঝোতা স্মরক স্বাক্ষরিত হয়৷ এর আওতায় জার্মানি বাংলাদেশকে ৫০ লাখ ই-পাসপোর্ট সরবরাহ করবে বলে জানা গেছে৷ সন্ত্রাস প্রতিরোধের লক্ষ্যে একটি যৌথ ঘোষণাও স্বাক্ষরিত হয়েছে৷

জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলকে বাংলাদেশ সফরেরও আমন্ত্রণ জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷

জলবায়ু বিষয়ক আলোচনা

মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনের সাইড লাইনে আয়োজিত ‘ক্লাইমেট সিকিউরিটি: গুড কপ, ব্যাড কপস’ শীর্ষক এক প্যানেল আলোচনায় অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ তিনি ছাড়াও ফিনল্যান্ডের বর্তমান প্রেসিডেন্ট, সুইডেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী, যুক্তরাষ্ট্রের সেনেটর ও আয়ারল্যান্ডের সাবেক প্রেসিডেন্ট আলোচনায় অংশ নেন৷

ন্যাটোর ভবিষ্যৎ নিয়ে আলোচনা

৫৩তম মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনের অন্যতম আলোচনার বিষয় ছিল ন্যাটো৷ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ন্যাটো সংক্রান্ত অতীত মন্তব্যের কারণে এর ভবিষ্যৎ নিয়ে অনেকের মনে আশঙ্কা তৈরি হয়৷ জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল বলেন, ন্যাটোর অস্তিত্ব শুধু ইউরোপ নয়, অ্যামেরিকার জন্যও গুরুত্বপূর্ণ৷ ‘‘বর্তমান চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বহুপাক্ষিক প্রচেষ্টা প্রয়োজন”, বলে মনে করেন তিনি৷ম্যার্কেলের পর দেয়া বক্তব্য মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স ন্যাটোর প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থনের ব্যাপারে ইউরোপকে আশ্বস্ত করেন৷ তবে ন্যাটো পরিচালনার জন্য সদস্য রাষ্ট্রগুলোর যে পরিমাণ অর্থ দেয়ার কথা তা পালন করতে সবার প্রতি আহ্বানও জানান তিনি৷ উল্লেখ্য, নিয়ম অনুযায়ী, ন্যাটোর প্রতিটি সদস্য রাষ্ট্রকে তাদের জিডিপির দুই শতাংশ প্রতিরক্ষা খাতে ব্যয় করার কথা৷ জার্মানি সেটি মেনে চলার চেষ্টা করবে বলে জানান ম্যার্কেল৷

এছাড়াও দেখুন

বাংলাদেশে চালু হচ্ছে ‘গোল্ড ব্যাংক’

বিশ্বের অন্যান্য দেশের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এবার বাংলাদেশেও চালু হচ্ছে গোল্ড ব্যাংক। মাত্র এক ঘণ্টায় …